কুতুপালং গ্রাম রাজাপালং ইউনিয়ন

0
24
hard logo

কুতুপালং গ্রাম রাজাপালং ইউনিয়ন

“কুতুপালং শরনার্থী শিবিরকে” সরকার-পরিচালিত শিবিরের পাশে অবস্থিত একটি অস্থায়ী শিবির হিসেবেও উল্লেখ করা হয়, যদিও এটি কোন সরকারি শরণার্থী শিবিরের অংশ নয়। কুতুপালংয়ের অস্থায়ী শিবির এবং পার্শ্ববর্তী এলাকায় বছরের পর বছর ধরে মায়ানমার থেকে পালিয়ে আসা শরণার্থীরা এটাকে বড় করে তুলছে। ২০১৭ সালে কুতুপালং অস্থায়ী শিবির এবং ঘুমদুম, বালুখালী, থংখালী এবং অন্যান্য এলাকার আশেপাশের শিবিরগুলি দ্রুতগতিতে জনাকীর্ণ হয়ে ওঠে এবং শরণার্থীতে ভরতে থাকে। ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন কুতুপালং-বালুখালিকে সম্প্রসারণ স্থান হিসেবে সমষ্টিগতভাবে উল্লেখ করে।[৭] ২৫ আগস্ট ২০১৭ থেকে আনুমানিক ৭,০০,০০০ রোহিঙ্গা মুসলমান ও হিন্দুরা মায়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে, যখন মায়ানমারের সামরিক বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে নতুন করে সামরিক অভিযান শুরু করে।